Super Hero origin: Adam Warlock ( Extended)

শুধু “Him” নামে ১৯৬৬ সালের সেপ্টেম্বর মাসে Fantastic Four এর ইস্যু নাম্বার ৬৬ তে প্রথম মার্ভেল কমিকস জগতে তার আগমন ঘটলেও, পরবর্তীতে তাকে সবাই Adam Warlock হিসেবেই সম্বোধন করেছে। এই কাল্পনিক চরিত্রের সৃষ্টিকর্তা লেখক সয়ং Stan Lee এবং অঙ্কিত হয়েছিলো বিখ্যাত Jack Kirby এর হাতে। যদিও এই চরিত্রের আসল দাবিদার হলো Jim Starlin। কেননা সেই ১৯৭০ থেকে ২০০০ পর্যন্ত তিনিই এই চরিত্রের লেখা এবং উন্নয়নশীল কাজে নিজেকে নিয়োজিত রেখেছে এবং “Him” কে রূপ দিয়েছে Adam Warlock এর।

Super Hero origin

☆☆জন্ম
আটলান্টিক সমুদ্রের অদূরে শার্ড আইল্যান্ডে “The Beehive” নামের একটি বৈজ্ঞানিক ল্যাবে একজন সর্ব সম্পূর্ণ মানুষ তৈরি করা এবং ভবিষ্যতের মানব বিবর্তনের সূচনা করার লক্ষে, মানসিক ভাবে বিপর্যস্ত “Enclave” নামের একদল বিজ্ঞানীর হাতে জন্ম হয় অ্যাডামের। বিজ্ঞানীরা তাকে নাম দেয় শুধু “Him” । আসলে ওই বিজ্ঞানীদের উদ্দেশ্য ছিলো নিজেদের কুকর্মে অ্যাডামকে ব্যবহার করা। তারা অ্যাডামকে অধিক শক্তিশালী ও ক্ষমতা বাড়ানোর জন্য পুনর্জাত সম্ভব,এমন গুটির ভিতরে আবদ্ধ করে তৈরি করছিলো। গুটি বা খোলসে থাকা অবস্থায়তেই অ্যাডাম তার সৃষ্টিকর্তাদের উদ্দেশ্য অনুধাবন করতে পারে। তার সম্পূর্ণ শারীরিক গঠনের পর যখন সে যখন গুটি থেকে বেড় হয়ে আসে তখন তার এই ধারনা আরো পরিষ্কার হয়ে যায়। এবং পরিশেষে সে তার সৃষ্টিকর্তাদের পরিত্যাগ করে চলে যায়।

☆☆ Thor এর সাথে লড়াই
সৌর জগত ঘুরে প্রায় একবছর পর অ্যাডাম আবার পৃথিবীতে ফিরে আসে। তখন সে অ্যাসগার্ডিয়ান দেবী Lady Sif এর দেখা পায়! এবং তাকে পছন্দ করে ফেলে কিশোর অ্যাডাম। সে চিন্তা করে , এই দেবীকেই সে তার বান্ধবী বানাবে। বিষটি সম্পর্কে Sif এর প্রেমিক Thor অবগত হয় এবং একপর্যায়ে Thor এর সাথে অ্যাডামের দন্দ লেগে যায়।Thor অ্যাডামকে মারতে মারতে প্রায় আধমরা করে ফেলে।পরে সেখানে অ্যাডাম তার গুটির ভেতর করে কোনো রকমে পালিয়ে আসে।

☆☆High Evolutionary
অ্যাডামের জীবন পরিবর্তন করেছিলেন যিনি তিনি হলেন The High Evolutionary! Thor এর কাছে প্রচুর মার খাওয়ার পর অ্যাডাম তার গুটিতে অনেক সময় অবস্থান করছিলো সম্পূর্ণ শারীরিক সুস্থতার জন্য। কিন্তু এর মাঝেই অ্যাডামের গুটিটি High Evolutionary পেয়ে যায়। কিন্তু সে গুটিটির কোনো ক্ষতি না করে অ্যাডামের গুটিটিকে নিরাপদে রাখেন, যতক্ষণ না অ্যাডাম সেখান থেকে বেরিয়ে আসে।অ্যাডামের ক্ষমতা অনুধাবনের পর High Evolutionary মনে করে অ্যাডামই Soul Gem এর সুরক্ষা এবং এর ক্ষমতা ব্যবহার করে বিপদসঙ্কুল Counter Earth কে বাচাতে পারবে। আর High Evolutionary ই তার নাম প্রথম ” Warlock” রাখে। মূলত High Evolutionary এর ছায়ায় যাওয়ার পর অ্যাডাম তার জীবনের একটি উদ্দেশ্য পায় এবং Soul Gem এর মালিক হয়।

☆☆Counter Earth
Counter Earth ছিলো High Evolutionary দ্বারা পরিক্ষাকৃত একটি কৃত্রিমভাবে তৈরি গ্রহ। কিন্তু সেখানে Man-Beast নামে উচ্চ বিবর্তনকারী জিনগতভাবে পরিবর্তিত হওয়া মানুষরূপী এক নেকড়ে বিশৃঙ্খলা তৈরি করা শুরু করে। Man-Beast ও তার নিজস্ব দল মিলে Counter Earth এ রাজত্ব শুরু করেছিলো।তাই High Evolutionary অ্যাডামকে Counter Earth এর পাঠায় Man-Beast কে দমনের জন্য।অ্যাডামের ক্ষমতা সম্পর্কে জানার পর Man-Beast অ্যাডামকে তার দলে সামিল হওয়ার জন্য নিমন্ত্রণ দেয়। কিন্তু অ্যাডাম তার কথায় পাত্তা না দিয়ে তার বিরুদ্ধে লড়াই চালিয়ে যায়।কয়েকবার লড়াইয়ে পরাজিত হয়েও অবশেষে কয়েক বছরের লড়াইয়ের পর Hulk এর সাহায্যে Man-Beast কে সে পরাজিত করে ছাড়ে।

☆☆ পূর্ণাঙ্গ নামকরন
Man-Beast কে দমনে উদ্দেশ্য অ্যাডাম যখন Counter Earth এ গিয়েছিল তখন তার সে চারজন কিশোর কিশোরী David Carter, Jason Grey, Eddie Roberts, ও Ellie Roberts এর সাথে পরিচয় হয়। তাদের মধ্যে Eille তার নাম “Adam” রাখে।কেননা Counter Earth এ সবার নামের দুটি অংশ থাকে তাই Eille ভাবলো অ্যাডামেরও নামের দুটি অংশ থাকা দরকার। আর সেখান
থেকেই Warlock , Adam Warlock নামে পরিচিত হয়ে ওঠে।

☆☆ Counter Earth এর প্রথম হিরো এবং Hulk
Man-Beast কে পরাজিত করার পর অ্যাডাম আস্তে আস্তে সম্পূর্ণ Counter Earth এর দুশমনদের পরাজিত করে এবং সেখানে শান্তি বয়ে আনে।সাথে সাথে Counter Earth এর প্রথম হিরো হবার মর্যাদা পায়। কিন্তু Man-Beast পিছু পা হওয়ার মতো নেকড়ে ছিলো না। সে আবার ফিরে আসে এবং এবার হ্লাকের মস্তিষ্ক নিয়ন্ত্রণ নিয়ে অ্যাডামের বিরুদ্ধে লালিয়ে দেয়।হ্লাক অ্যাডামকে প্রায় মৃত্যু প্রান্তে নিয়ে যায় পাশাপাশি Man-Beast হ্লাকের সাহায্য নিয়ে অ্যাডামের অনুসারীদেরও বন্ধি করে ফেলে।অবশেষে অ্যাডাম Hulk এর মানসিক স্থিতি আনতে সক্ষম হয় এবং মৃত্যুর শেষ মুহূর্তে তার গুটিতে লুকিয়ে পরে। সবার ভিতরে এই ধারনা সৃষ্টি হয় যে অ্যাডাম মারা গেছে। কিন্তু অ্যাডাম আবার ফিরে আসে এবং এবার সে আগের থেকেও শক্তিশালী হয়ে। অবশেষে অ্যাডাম Man-Beast ও তার অনুসারীদের কে চূড়ান্ত ভাবে পরাজিত করে। এবং এবার সে এতোই শক্তিশালী ছিলো যে তাদেকে আবার আগের পশু রূপ দিতেও সে সক্ষম হয়।
এরপর সেখানে থেকে বিদায় নিয়ে অ্যাডাম অন্যান্য গ্রহে তার কাজ চালিয়ে যেতে থাকে।

☆☆ Magus
একদা ঘটনাক্রমে অ্যাডাম মুখোমুখি হয় Universal Church of Truth নামের একটি সংগঠনের। Universal Church of Truth এর কাজ ছিলো বিভিন্ন গ্রহ ধংস করা। এদের নেতা ছিলো Magus। Universal Church of Truth ই Gamora’রার গ্রহ ধংস করেছিলো। তো একপর্যায়ে সবার কোনো না কোনো ব্যক্তিগত কারনে Thanos , Gamora এবং Pip the Troll অ্যাডামের সাথে যোগ দেয় Magus কে হারানোর জন্য। কিন্তু তখন অ্যাডাম আবিষ্কার করে যে Magus তার নিজেরই ভবিষ্যত। Soul Gem এর ব্যবহার Magus কে মানসিক ভাবে বিপর্যস্ত করে তুলেছে তাই সে অতীতে এসে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করছে।তাই অ্যাডাম সিদ্ধান্ত নেয় সে নিজে ভবিষ্যতে ভ্রমণে গিয়ে Magusএর আত্মা চুরি করবে। আর এতো করে Magus এর কখনো কোনো অস্তিত্বই থাকবে না।আর এই ভবিষ্যত ভ্রমণে বের হয়েই অ্যাডাম অন্যান্য Infinity Gems দের ব্যাপারে জ্ঞান অর্জন করে।

■■ শক্তি ও ক্ষমতা ■■
৬’২ লম্বা এবং ১০৯ কেজি ওজন নিয়ে অ্যাডাম প্রায় বিশাল দেহ অধিকারী।সোনালী চুল,গায়ের রং এবং লাল-সাদা চোখ নিয়ে অ্যাডামের শক্তি ও ক্ষমতা অতুলনীয়।অ্যাডামের শক্তির মূলত কোনো লেভেল নেই। সে যতোবেশি তার গুটিতে অবস্থান করবে ততোবেশি তার শক্তি বৃদ্ধি পেতে থাকবে।এমনকি Thanos নিজে অ্যাডামকে তার থেকে শক্তিশালী বলে উল্লেখ্য করেছে।Xandarian Worldmind অ্যাডামকে Dark Quasar থেকে শক্তিশালী বলেছে। এছাড়া Nova Prime,Richard Rider অ্যাডামের শক্তি ও ক্ষমতাকে অপরিমান যোগ্য বলে স্বীকার করেছেন।তার রিফ্রেক্স , মনোবল , গতি ও দর্শনশাস্ত্রে পটুতা ইত্যাদি তাকে করে তুলেছে মার্ভেল জগতের জ্ঞানী ও শক্তিশালী সুপারহিরোদের ভিতরে একজন।

১. অ্যাডামের হাড় এবং পেশী সাধারণ মানুষের তুলনায় অনেক শক্তিশালী।তার তার শরীরের ক্লান্তি নেওয়ার প্রয়োজন বললেই চলে।হ্যান্ড টু হ্যান্ড কমবেটে প্রথম দিকে খুব একটা পারদর্শিতা না দেখাতে না পারলেও পরবর্তীতে সে খুব পটু হয়ে ওঠে।কেননা সে Autolycus এর ফাইটিং স্কিল শোষণ এবং Gamora ও একজন Black Knight থেকে ট্রেনিং প্রাপ্ত। এছাড়া সুপার স্পিড তার ক্ষমতার উল্লেখ যোগ্য একটি অংশ। সে আমাদের Invisible Man-Drax The Destroyer🙈 কে তার স্পিড দ্বারা কয়েকবারই বেহুঁশ করে দিয়েছেন🙈। এছাড়া সে একবার তার স্পিড দ্বারা Galactus কেও মুগ্ধ করতে পেরেছিলো।তার উড়ার গতি দারুন। পৃথিবীর মতো বায়ুমণ্ডলে সে প্রতি ঘন্টায় 770 মাইল গতিতে উড়তে পারে যা অনেকটা শব্দের গতির গতির তুলনীয়।আর বায়ুমণ্ডলের বাহিরে তাকে আলোর গতি থেকেও বেশি গতিতে উড়তে দেখা গিয়েছে।

২. অমরত্ব হলো অ্যাডামের সবচেয়ে উল্লেখ্য দিক গুলোর ভিতরে একটি।তাকে হাজারবার মেরে যদি তাকে তার গুটির ভিতরে রেখে দেওয়া হয় তাহলে আবার জীবিত হওয়া তার বাম হাতের খেলা। আর যার জন্য অ্যাডামের আত্মা তার থেকে ছিনিয়ে নেওয়া কারো পক্ষে প্রায় অসম্ভব। Deathও অ্যাডামের আত্মা ছিনিয়ে নিতে ব্যর্থ ছিলো।ধারনা করা হয় এজন্যই সে Soul Stone বহনযোগ্যতা সম্পূর্ণ । Thor, Drax এর হাতে মার এবং Man-Beast প্রায় কয়েকবার প্রায় মৃত্যু বরন পরেও সে প্রতিবারই আরো শক্তিশালী হয়ে বেচে ফিরেছিলো।

৩. Soul Gem এর সাথে অ্যাডামের চেয়ে ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক আর কারো নেই! ধারনা করা হয়ে থাকে এই পর্যন্ত যতোজন Soul Gem হাসিল করেছে, তাদের ভিতরে মানসিক দিক ও দক্ষতার থেকে অ্যাডামই সবচেয়ে শক্তিশালী ছিলো।আর যখন অ্যাডামের মাথায় Soul Stone থাকে না তখনটও সে বলে দিতে পারে স্টোন কোথায় এবং কে তার বর্তমান মালিক।

Silver Surfer তাকে “Master Of All Soul” বলে উল্লেখ্য করেছেন। শুধু অনেকর আত্মারই না সে নিজের ইচ্ছা মতো নিজের আত্মাকেও ব্যবহার করতে পারে। Soul Gem তার কাছে না থাকলেও সে আত্মার দুনিয়া থেকে যে কোনো কাউকে মুক্তি দিতে পারে। যেমনটা Silver Surfer কে Infinity Gauntlett স্টোরি লাইনে দিয়েছিলো।

Soul Gem এর ক্ষমতা দ্বারা অ্যাডাম যেকেনো অস্তিত্বের ভাষা বুঝতে পারে।এছাড়া সেকেন্ডের ভিতরে কয়েকশ আত্মা Soul Gem এর ভিতরে বন্ধি করা এবং এর ক্ষমতায় যেকোনো অস্তিত্বের জ্ঞান অর্জন করা! অতীত, বর্তমান, ভবিষ্যতের যেকেনো আত্মার সাথে যোগাযোগ করা, যেকোনো আত্মার সম্পূর্ণ জীবনা বৃত্তান্ত অনুধাবন করা,যেকোনো জাদুকরী মায়াজাল ভেদ, কাউকে মাইন্ড কন্ট্রোল থেকে মুক্ত করা, Soul Gem এর সম্পূর্ণ ব্যবহার সম্পর্কে দক্ষতা ইত্যাদি তার সেরা বৈশিষ্ট্য গুলোর মধ্যে অন্যতম । এছাড়া “Karmic Blast” নামে এক প্রকার ব্লাষ্ট আছে যা অ্যাডাম Soul Gem এর সাহায্যে করে থাকে। এই ব্লাষ্ট এতোই শক্তিশালী যে এটি কসমিক বিং দের ও খবর ছুটিয়ে দেয়।

৪. Thanos এর ভাষ্যমতে অ্যাডামের যেকোনো ধরনের শক্তি শোষণ ক্ষমতা Galactus এবং সয়ং Thanos এর সাথে তুলনীয়। এই কারনে অ্যাডামের খাদ্য নিদ্রার প্রয়োজন পরে না।

৫. গুটি থেকে প্রতিবার জন্মের মাধ্যমে অ্যাডামের জ্ঞানের উন্নতি ঘটতো। Magus এর আত্মা থেকে তার সম্পূর্ণ স্মৃতি নিজের মধ্যে প্রতিস্থাপন করার পর সকল গ্যালাক্সির সকল প্রকার বিং এবং এনোলুমির যেমন ব্লাক হোল, এসবের ব্যাপারে সে পরিস্কার জ্ঞান অর্জন করেছিল।বহু-স্বতন্ত্র-বিভাগীয় মস্তিষ্কের কারনে তার ছিলো রহস্যময় কসমিক সেন্স।তার ওয়ার্মহোল সনাক্ত ও সৃষ্টি করার ক্ষমতা আছে।জগতে কে কখন কোথায় টেলিপোর্ট হচ্ছে ওগুলো তার জ্ঞানের বাহিরে না।তার নিজেরও টেলিপোর্ট করার রহস্যময় ক্ষমতা আছে। আধ্যাত্মিক জগতে কোনো দুর্ঘটনা ঘটলেও অ্যাডাম টের পায়🐸🔫ধারনা করা হয় তার অদূর ভবিষ্যত দেখা কিংবা অনুধাবন করার ক্ষমতা আছে। এছাড়া Time Gem এবং Reality Gem অ্যাডামের ওপর তেমন একটা প্রভাব ফেলতে পারে না।

৬. Warlock যার অর্থ হচ্ছে মায়বী!High Evolutionary অ্যাডামকের এই নামটি এভাবে তো আর দেয় নি!কেননা অ্যাডামের ক্ষমতা গুলোর মধ্যে সবচেয়ে শক্তিশালী অংশ জুড়ে রয়েছে জাদু! আর এগুলোর জন্য তার Soul Gem এর প্রয়োজন তেমন একটা পরে না। অ্যাডামের কিছু রহস্যময়ী জাদুর এখনো তেমন ব্যাখ্যা করা হয়নি।অ্যাডাম টাইম ট্রাভেল, পোর্টাল খোলা, নিজের আত্মাকেও আরেক জনের শরীরে প্রতিস্থাপন করা, শুধু নিজেরই না অন্যের আত্মা নিয়ে খেলাধুলা করা🐸🔫 ম্যাজিক্যাল ব্লাষ্ট, কাউকে কিংবা নিজেকে হিলিং করা ইত্যাদি সবই পারে🐸 অ্যাডামকে কোয়ান্টাম ম্যাজিকের গুরু বলা চলে! কেননা এর সাহায্যে সে তার পুরো শরীরকে একটি কসমিক শক্তিতে রূপান্তরিত করতে পারে।এছাড়া আরো অগণিত ম্যাজিক্যাল ক্ষমতা রয়েছে তার।

■■ বিস্তারিত কিছু তথ্য ■■
১. MCU তে Gurdian Of The Galaxy Vol.2 এর মিড ক্রেডিট সিনে আমরা দেখলাম Ayesha অ্যাডামকে তৈরি করছে ।কমিকসে Ayesha আসলে অ্যাডামের জেনেটিক্যাল বোন। কমিকসে তার নাম হলো “Kismat”
৩. সম্পূর্ণ Marvel এর অস্তিত্বের বাইরেও অ্যাডামের অস্তিত্ব ধরে রাখতে সক্ষম ।(He exists out of the Marvel universe)
২. অ্যাডাম Infinity Gauntlett পরিধান কারী ব্যক্তিদের ভিতরে একজন।
৩. মূলত অ্যাডাম Thanos এর ঘনিষ্ঠ বন্ধুদের মধ্যে একজন।Thanos যখন পুরো Marvel এর অস্তিত্বকে ধংস করে সম্পূর্ণ শূন্যে একা বসে ছিলো তখন অ্যাডামই তার কাছে যায় এবং তাকে বুঝায়। আর তার কথাতেই Thanos নিজের অস্তিত্বকে বিসর্জন দিয়ে পুরো Marvel কে অস্তিত্বতে আবার ফিরিয়ে আনে।
সম্প্রতি Infinity Revelation এ একজন আরেকজনকে বাচানোর উদ্দেশ্যে ,Thanos আর অ্যাডাম দুজনকেই সময় এবং স্পেস পাড়ি দিয়ে একজন আরেকজনের অন্য একটি ভার্সনকে মারার জন্য সর্বোচ্চ চেষ্টা করতে দেয়া গিয়েছে।❤
৪. সরাসরি The One Above All এর সাথে সাক্ষাত করা Marvel এর কয়েকটি চরিত্রের ভিতরে অ্যাডাম একটি।
৫. সে Gurdian Of The Galaxy এর প্রতিষ্ঠাতা সদস্যদের মধ্যে একজন ।
৬. তাকে Marvel জগতের স্পেসের “Super Jesus” বলা হয়।
৭. Ultron এবং High Evolutionary অ্যাডামকে একজন সয়ং সম্পূর্ণ সুপার হিউম্যান বলে উল্লেখ করেছে।
৮. কয়েক সেকেন্ড শতশত আত্মা Soul Gem এ বন্ধি করার দক্ষতার জন্য Thanos অ্যাডামকে খুবই ভয় পায়।
৯. অ্যাডাম এই পর্যন্ত যতোজনের ওপর “Karmic Blast” ব্যবহার করেছে তাদের ভিতরে Thor ই একমাত্র এই ব্লাষ্ট থেকে বেচে ফিরতে সক্ষম হয়েছে।
১০. Infinity Gauntlett স্টোরি লাইনে সবচেয়ে মুখ্য ভূমিকা পালন করেছিল অ্যাডাম। বলতে গেলে পুরো স্টোরির মুখ্য পাত্র সে আর Thanos ই ছিলো।
১১. অ্যাডামকে এই পর্যন্ত ৫৪০ টি ইস্যুতে দেখা গিয়েছে ।
১২. MCU তে অ্যাডামের গুটিটিকে প্রথম The Collector এর কালেকশনে দেখা গিয়েছে ।
১৩. আর সবচেয়ে বড় কথা বর্তমানে সে মার্ভেল জগতের “The Living Tribunal ” এর ভূমিকা পালন করছে🐸🔫

#TEAM MLOBD 🇧🇩
Ask laftan anlamaz Full Turkish Movie Review

kaspermoviesSuperheroes OriginsSuper Hero origin,Super Hero origin: Adam Warlock ( Extended)
Super Hero origin: Adam Warlock ( Extended) শুধু 'Him' নামে ১৯৬৬ সালের সেপ্টেম্বর মাসে Fantastic Four এর ইস্যু নাম্বার ৬৬ তে প্রথম মার্ভেল কমিকস জগতে তার আগমন ঘটলেও, পরবর্তীতে তাকে সবাই Adam Warlock হিসেবেই সম্বোধন করেছে। এই কাল্পনিক চরিত্রের সৃষ্টিকর্তা লেখক সয়ং Stan Lee এবং অঙ্কিত হয়েছিলো বিখ্যাত Jack Kirby...